বাংলা

টুইটার রিঅ্যাকশনঃ স্বল্প রানের হাড্ডাহাড্ডি ম্যাচে শেষ হাসি হাসল অজিরা

স্মিথের অবিশ্বাস্য ক্যাচ নিয়ে আলোচনায় মার্করাম

Josh Hazlewood
Josh Hazlewood. (Photo by Gareth Copley-ICC/ICC via Getty Images)

সুপার ১২-র প্রথম ম্যাচে স্বল্প রান তাড়া করতে নেমেও বেশ কালঘাম ছুটে গেল অস্ট্রেলিয়ার। তারা সম্মিলিত বোলিং প্রচেষ্টায় দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১১৮/৯-এ সীমাবদ্ধ করে রেখেছিল, কিন্তু প্রোটিয়ারা শেষ পর্যন্ত লড়াইয়ে থেকে প্রায় ম্যাচ বার করে এনেছিল। স্টিভেন স্মিথ এবং গ্লেন ম্যাক্সওয়েল মিডল অর্ডারে সামলিয়ে খেলেন এবং মার্কাস স্টোইনিস এবং ম্যাথু ওয়েডের শেষের দিকে ঝোড়ো গতিতে রান করে দলের ঝুলিতে দুটি পয়েন্ট নিশ্চিত করেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার দুর্বল ব্যাটিং

প্রথমে ব্যাট করার জন্য নির্বাচিত হওয়ার পর তেম্বা বাভুমার নেতৃত্বাধীন দল পাওয়ারপ্লের মধ্যেই ৪.১ ওভারে ২৩/৩ হয়ে যায়। বাভুমা শুরুতে ইতিবাচক অভিপ্রায় দেখিয়েছিলেন, মিচেল স্টার্ককে ড্রাইভ মেরে বাউন্ডারিও তুলে নেন। কিন্তু দ্বিতীয় ওভারে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের একটি সোজা ডেলিভারি তাঁর স্টাম্প কাঁপিয়ে দেয়। তারপরেই  জোশ হ্যাজলউড তাঁর কামাল দেখিয়ে পাওয়ারপ্লেতে মাত্র ২ ওভারে ১টি মেডেন দিয়ে মাত্র ১ রান দিয়ে ২টি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট তুলে নেন। তাঁর শিকার র‍্যাসি ফান ডার ডাসেন ও কুইন্টন ডি কক। হ্যাজেলউডের বোলিং পরিসংখ্যান ৪ ওভার-১ মেডেন-১৯ রান- ২ উইকেট।

পাওয়ারপ্লের ব্যর্থতা কাটিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস ছন্দে ফিরতে পারেনি। নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট হারাতে থাকে। কিছুটা আশা দেখিয়েছিলেন একমাত্র এইডেন মার্করাম ৪০ (৩৬)। অস্ট্রেলিয়া মোট পাঁচজন বোলারকে দিয়ে বল করিয়েছিল এবং তাঁরা প্রত্যেকেই উইকেটপ্রাপকের তালিকায় নাম তুলেছেন। 

শুরুতেই রাবাডা ও নর্কিয়ার হামলা অজি ব্যাটিং দুর্গে

স্বল্প রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে অস্ট্রেলিয়ার শুরুটা ভালো হয়নি। নর্কিয়ার বলে অধিনায়ক ফিঞ্চ শূন্য রানেই প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন। ওয়ার্নার ৩টি বাউন্ডারি পেলেও তিনি ১৫ বলে ১৪ করে রাবাডার বলে আউট হয়ে যান। দক্ষিণ আফ্রিকার দুর্বল ২৯/৩-এর জবাবে অস্ট্রেলিয়া তাদের পাওয়ারপ্লেতে ২৮/২ ম্যানেজ করে খেলাটিকে তখনো ভারসাম্যপূর্ণ করে রেখেছিল। 

তিন নম্বরে নামা মিচেল মার্শও বেশিক্ষণ টেকেননি। আউট হন ১৭ বলে ১১ করে। এরপরেই খেলাটা ধরে নেন স্টিভ স্মিথ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। তাঁরা রান তোলার গতি খুব বেশি না বাড়ালেও ধীরে ধীরে লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন। পঞ্চদশ ওভারে নর্কিয়ার বলে স্মিথ পুল মারলে লং অন থেকে অনেকটা দূরত্ব অতিক্রম করে এইডেন মার্করাম একটি অভাবনীয় ক্যাচ ধরেন যা নিয়ে শোরগোল পড়ে যায়।

১ রানের ব্যবধানে স্মিথ, ম্যাক্সওয়েল ফেরার পর অস্ট্রেলিয়া আবার চাপে পড়ে গেলেও স্টোইনিস ও ওয়েড বুদ্ধিদীপ্ত ব্যাটিং করে অস্ট্রেলিয়ার ২ পয়েন্ট নিশ্চিত করেন। স্টোইনিস ১৬ বলে ২৪ এবং ওয়েড ১০ বলে ১৫ রানে অপরাজিত থেকে দুই বল বাকি থাকতেই লক্ষ্যে পৌঁছে যান। ম্যাচের সেরা নির্বাচিত হন জশ হ্যাজেলউড।

অস্ট্রেলীয় বোলারদের এই সম্মিলিত পারফর্ম্যান্সের রেশ সোশ্যাল মিডিয়াতেও ছড়িয়ে পড়ে। টুইটারে আলোড়ন পড়ে যায় অত অল্প রানের ম্যাচও শেষ অবধি উত্তেজনাপূর্ণ হয়ে ওঠায়। আলোচনায় উঠে আসে মার্করামের ক্যাচটিও। রইল তারই কিছু নজির।