বাংলা

স্টিভ স্মিথকে সহ-অধিনায়ক করায় সমালোচনা করেছেন ইয়ান চ্যাপেল

টিম পেইন দায়িত্ব ছাড়ার পর কামিন্স অধিনায়ক হওয়ায় স্মিথ সহ-অধিনায়ক হয়েছেন

Ian Chappell
Ian Chappell. (Photo by Ryan Pierse/Getty Images) 

বল বিকৃতি কেলেঙ্কারির দায়ে ২০১৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়কত্ব হারিয়েছিলেন স্টিভেন স্মিথ। কিন্তু সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট দলের সহ অধিনায়কত্বের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে স্মিথকে। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) কড়া সমালোচনা করেছেন ইয়ান চ্যাপেল বিতর্কিত এই ক্রিকেটারকে পুনরায় দলের দায়িত্ব দেওয়ায়।

২০১৮ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কেপটাউন টেস্টে বল বিকৃতির ঘটনায় জড়িত থাকায় অস্ট্রেলিয়ার নেতৃত্ব হারান স্টিভ স্মিথ। সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার ও সেই দলের ওপেনার ক্যামেরন ব্যানক্রফটও নিষেধাজ্ঞার সাজা ভোগ করেন স্মিথের সঙ্গে। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেটের সেই দুরবস্থায় টেস্ট অধিনায়কত্ব পান টিম পেইন।

পেইনও এবার বিতর্কিত কান্ডে নেতৃত্ব ছেড়েছেন। ক্রিকেট তাসমানিয়ার পরিচিত এক নারী সহকর্মীকে কুরুচিপূর্ণ ছবিসহকারে বার্তা পাঠানোর ঘটনা গণমাধ্যমে আসলে অনুশোচনার তাগিদে নেতৃত্ব ছাড়েন তিনি।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সমালোচনা করেছেন ইয়ান চ্যাপেল

পেইনের পর নেতৃত্বে এসেছেন পেট কামিন্স। আর সহ অধিনায়কের দায়িত্ব পেয়েছেন স্মিথ। নামের পাশে বিতর্ক থাকা সত্ত্বেও স্মিথকে সহ অধিনায়কের দায়িত্ব দিয়েছে সিএ। ক্রিকেট বোর্ডের এমন সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত হতে পারছেন না চ্যাপেল।

“শুরুতে, আমার একটি সমস্যা আছে – কেন স্টিভ স্মিথকে ডেভিড ওয়ার্নারের জন্য আলাদা শাস্তি হিসেবে দেখা হচ্ছে? আসলে, যদি কিছু হয়, আমি মনে করি স্মিথের অপরাধ আরও বড় ছিল। একজন অধিনায়ক প্রতারণার সাথে জড়িত থাকলে তার ‘আমি জানতে চাই না’ বলা সঠিক নয়,” ইয়ান চ্যাপেল কটাক্ষ করেছেন।

“একজন অধিনায়ক জানতে পেরেছে, তাকে খুঁজে বের করতে হবে এবং তাকে এটি সম্পর্কে কিছু করতে হবে। হয় স্মিথের অধিনায়কত্ব থেকে দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে এবং ওয়ার্নারও, অথবা স্মিথের আজীবন নিষেধাজ্ঞা রয়েছে এবং ওয়ার্নারেরও,” চ্যাপেল বলেছিলেন।

চ্যাপেলেরও অভিমত ছিল যে পেইনের ক্ষেত্রে, সিএ-রই উচিত ছিল তার অধিনায়কত্ব কেড়ে নেওয়ার পর তাকে একাদশ থেকে বাদ দেওয়া। সাম্প্রতিক ঘটনার পর, পেইন অস্ট্রেলিয়ান টেস্ট অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়ান এবং ক্রিকেট থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিরতি নেন।

তিনি আরও বলেন, “প্রতারণা প্রতারণাই। সেটা বড় হোক বা ছোটো হোক। আমার বইয়ে সেটা প্রতারণাই। ‘আমি যদি অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক হিসেবে প্রতারণা করতাম, তাহলে তারা (সিএ) আমার কাছ থেকে দায়িত্ব কেড়ে নিত এবং এটা নিশ্চিত করতো যে, আমি যাতে খেলোয়াড় হিসেবে খেলা চালিয়ে না যেতে পারি।”