বাংলা

টুইটার রিঅ্যাকশনঃ কিলার মিলারের মারকুটে ব্যাটিং ম্লান করে দিল হাসারাঙ্গার হ্যাট-ট্রিক

এক বল বাকি থাকতে লক্ষ্যে পৌঁছয় প্রোটিয়ারা

David Miller and Kagiso Rabada
David Miller and Kagiso Rabada. (Photo by INDRANIL MUKHERJEE/AFP via Getty Images)

ডেভিড মিলারের ১৩ বলে অপরাজিত ২৩-এর ​​দুর্দান্ত ক্যামিওর  সৌজন্যে দক্ষিণ আফ্রিকা শ্রীলঙ্কাকে ৪ উইকেট এবং ১ বল বাকি থাকতেই হারাল। প্রথমে ব্যাট করে ১৪৩ রানের লক্ষ্য স্থির করে শ্রীলঙ্কা। দক্ষিণ আফ্রিকা পাওয়ারপ্লের ভিতরেই ২৬ রানের মধ্যেই তাদের উভয় ওপেনারকে হারালে, তখন মনে হচ্ছিল ২ পয়েন্ট হয়তো প্রোটিয়াদের হাতছাড়া হতে চলেছে। 

রাসি ফান ডার ডাসেন এবং অধিনায়ক তেম্বা বাভুমা তৃতীয় উইকেটে ২৩ রানের জুটি গড়েন। ওই পার্টনারশিপে দুজনেই খুব ঝুঁকিপূর্ণ রান নিচ্ছিলেন এবং শেষ অবধি সেভাবেই রান নিতে গিয়ে ফান ডার ডাসেন আউট হন। দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোরকার্ডে তখন ৪৯। 

এইডেন মার্করাম এবং টেম্বা বাভুমা এরপর ৪র্থ উইকেটে ৪৭ রানের মূল্যবান পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন যা দক্ষিণ আফ্রিকাকে লড়াইয়ে রাখে। ১৫তম ওভারের শেষ বলে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার গুগলিতে ক্লিন-বোল্ড হন মার্করাম।

ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার করা ১৮তম ওভারটি দক্ষিণ আফ্রিকা শিবিরে উত্তেজনা সৃষ্টি করে। অন্যদিকে ওই ওভারের পর শ্রীলঙ্কা শিবির বিশ্বাস করতে শুরু করে ম্যাচ তাদের পকেটে চলে এসেছে। হাসরাঙ্গা প্রথমে তেম্বা বাভুমাকে আউট করেন এবং পরবর্তী ডেলিভারিতেই ডোয়েইন প্রিটোরিয়াসের উইকেট তুলে হ্যাট-ট্রিক সম্পন্ন করেন (তিনি তার আগের ওভারের শেষ বলে একটি উইকেট তুলে নিয়েছিলেন)।

শ্রীলঙ্কার হয়ে দুষ্মান্থা চামিরা নিয়েছেন দুটি উইকেট। তবে ডেভিড মিলার শেষ অবধি মাথা ঠাণ্ডা রেখে লাহিরু কুমারার ত্রুটিপূর্ণ বোলিংয়ের সুযোগ নিয়ে শেষ ওভারে দুটি ছক্কা হাঁকিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ম্যাচ জিতিয়ে আনেন। 

পাথুম নিসাঙ্কার ৭২ রান শ্রীলঙ্কাকে ১৪২-এ পৌঁছতে সাহায্য করে

পাথুম নিসাঙ্কা একা লড়ে শ্রীলঙ্কা দলকে তাদের নির্ধারিত ২০ ওভারে মোট ১৪২ রানে পৌঁছতে সাহায্য করেন। ডানহাতি এই ব্যাটার ওপেনিংয়ে নেমে ৫৮ ডেলিভারিতে দুর্দান্ত ৭২ রান করেন, তার ইনিংসটি সাজানো ছিল ৬টি চার এবং ৩টি ছক্কায় ।

নিসাঙ্কা ছাড়াও উল্লেখযোগ্য ইনিংস বলতে কেবল চারিথ আসালাঙ্কার ১৪ বলে ২১। নিসাঙ্কা এবং আসালঙ্কা ছাড়া শ্রীলঙ্কার একজনও ব্যাট হাতে ২০ রানের সীমাও অতিক্রম করতে পারেনি। শ্রীলঙ্কার ৮জন ব্যাটার দুই অঙ্কের রানে পৌঁছতে ব্যর্থ হন। 

বল হাতে তাব্রেইজ শামসি এবং ডোয়াইন প্রিটোরিয়াস প্রোটিয়াদের পক্ষে ছিলেন নজর কেড়েছিলেন। শামসি এবং প্রিটোরিয়াস দুজনেই ৩টি করে উইকেট নিয়ে শ্রীলঙ্কা দলকে বড় রান তোলা থেকে আটকান। 

এরকম একটি টানটান ম্যাচের পর ডেভিড মিলারের শেষ ওভারের দুটি ছক্কা সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনার কেন্দ্রে। নেটাগরিকরা হাসারাঙ্গার হ্যাট-ট্রিক নিয়েও আলোড়ন ফেলে দেন। রইল তারই কিছু নজির।