টি-২০ বিশ্বকাপ ২০২৪-এর আগে সঞ্জু স্যামসনের ভূমিকা সম্পর্কে নিজের মতামত প্রকাশ করলেন রবিন উথাপ্পা

Sanju Samson
Sanju Samson. (Image Source: Twitter)

প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার রবিন উথাপ্পা মনে করছেন যে বোর্ড অফ কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া (বিসিসিআই) এবং ভারতের টিম ম্যানেজমেন্টের উইকেটরক্ষক-ব্যাটার সঞ্জু স্যামসনকে ধারাবাহিকভাবে দলে সুযোগ দেওয়া উচিত। স্যামসন যে খুবই প্রতিভাবান একজন ক্রিকেটার সেই ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই। তবে তিনি ভারতীয় দলে এখনও পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে সুযোগ পাননি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ওডিআই সিরিজে তিনি দুটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন। এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের টি-২০ সিরিজের প্ৰথম ম্যাচেও প্ৰথম একাদশে জায়গা করে নিয়েছিলেন তিনি।

২০২৪ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে টি-২০ বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে। রবিন উথাপ্পা মনে করছেন যে টি-২০ ক্রিকেটে সঞ্জু স্যামসনকে টানা ৬ নম্বরে খেলিয়ে যাওয়া উচিত যাতে সে সেই পজিশনটিকে ভালোভাবে বুঝতে পারে।

জিও সিনেমাকে রবিন উথাপ্পা বলেন, “আমি আশাবাদী যে টিম ম্যানেজমেন্ট বিবেচনা করে সঞ্জু স্যামসনকে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ৬ নম্বরে খেলানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তবে তাকে টানা সুযোগ দেওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি সঞ্জু স্যামসনকে ফিনিশারের ভূমিকায় বিশ্বকাপে নিয়ে যেতে চান, তাহলে এটি গুরুত্বপূর্ণ যে সে যেন পজিশনটা ভালোভাবে বোঝে। সে সেই পজিশনে যত বেশি খেলবে, তত ভালোভাবে সেটিকে সে বুঝতে পারবে।”

প্ৰথম টি-২০ ম্যাচে বেশি রান করতে পারেননি সঞ্জু স্যামসন

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে প্ৰথম টি-২০ ম্যাচে ১২ বলে মাত্র ১২ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরে গিয়েছিলেন সঞ্জু স্যামসন। দুর্ভাগ্যবশত, এই প্রতিভাবান ব্যাটার রান আউট হয়ে গিয়েছিলেন। তিনি এই ইনিংসে ১টি ছয় মারতে সক্ষম হয়েছিলেন।

রোভম্যান পাওয়েলের নেতৃত্বাধীন ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্ৰথমে ব্যাটিং করে স্কোরবোর্ডে ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৪৯ রান তুলতে সক্ষম হয়েছিল। পাওয়েল তার দলের হয়ে সর্বোচ্চ রান করেছিলেন। তিনি ৩২ বলে ৪৮ রানের একটি সুন্দর ইনিংস খেলেছিলেন। তার ইনিংসে ছিল ৩টি চার এবং ৩টি ছয়। নিকোলাস পুরানও একটি সুন্দর ইনিংস খেলেছিলেন। তিনি ৩৪ বলে ৪১ রান করতে সক্ষম হয়েছিলেন। তিনি এই ইনিংসে ২টি চার এবং ২টি ছয় মেরেছিলেন। ওপেনার ব্র্যান্ডন কিং ৪টি চার এবং ১টি ছয় সহ ১৯ বলে ২৮ রান করেছিলেন।

হার্দিক পান্ডিয়ার নেতৃত্বাধীন ভারত ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১৪৫ রান করতে সক্ষম হয়েছিল। তিলক ভার্মা বাদে ভারতের আর কোনও ব্যাটার ৩০ রানের গন্ডি পার করতে পারেননি। তিলক ২টি চার এবং ৩টি ছয় সহ ২২ বলে ৩৯ রান করেছিলেন।