“আমি অবসর নিয়েছি” – আসন্ন বিশ্বকাপের আগে ওডিআই ক্রিকেটে ফেরার সম্ভাবনা অস্বীকার করলেন বেন স্টোকস

Ben Stokes
Ben Stokes. (Photo by Visionhaus/Getty Images)

৫ই অক্টোবর থেকে ওডিআই বিশ্বকাপ শুরু হতে চলেছে। এবারের বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে ইংল্যান্ড এবং নিউ জিল্যান্ড একে অপরের মুখোমুখি হবে। ইংল্যান্ডের ২০১৯ ওডিআই বিশ্বকাপ জয়ের পিছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন বেন স্টোকস। ২০২২ সালে কাজের চাপ সামলানোর জন্য ওডিআই ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছিলেন স্টোকস। অনেকেই মনে করছিলেন যে তিনি আসন্ন ওডিআই বিশ্বকাপে অবসর ভেঙে ফিরে আসতে পারেন। কিন্তু সম্প্রতি তিনি স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন যে তিনি ওডিআই ক্রিকেটে ফিরে আসার ব্যাপারে ভাবছেন না।

আইসিসি বেন স্টোকসের বক্তব্যকে উদ্ধৃত করেছে, “আমি অবসর নিয়েছি। আমি এই খেলার (পঞ্চম অ্যাশেজ টেস্ট) পরে ছুটিতে যাচ্ছি এবং আমি এই মুহূর্তে এর থেকে বেশি কিছু ভাবছি না।”

বেন স্টোকস তার চোটের ব্যাপারে বলেন, “এটি এমন কিছু যেটার আমি স্পষ্টতই সমাধান করতে চাই। আমি স্পেশালিস্টদের সাথে এই ব্যাপারে কথা বলেছি এবং এই ধরনের জিনিস ক্রিকেটারদের সাথে হয়। সুতরাং, এটি নিয়ে যতদিন চালিয়ে যাওয়া সম্ভব ছিল ততদিন আমি চালিয়ে গেছি। তবে আমি মনে করি যে এখন সময় এসেছে চিকিৎসকদের সাথে এই ব্যাপারে গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করার, যাতে আমার হাঁটু নিয়ে চিন্তা না করেই আমি বোলিং করতে পারি। আমার যে ভূমিকা রয়েছে সেটি সঠিকভাবে পালন করার জন্য আমাকে এই ব্যাপারে গুরুত্ব দিতেই হবে। এরপর (অ্যাশেজ সিরিজের পর) আমি যে সময় পাব তখনই এই ব্যাপারে আমি চিকিৎসকদের সাথে আলোচনা করব।”

“স্পষ্টতই অ্যাশেজের চারপাশেও প্রচুর ক্রিকেট খেলা হয়, তবে যখন ২০২৫ আসবে তখন আমরা দেখতে পাব কি হবে” – বেন স্টোকস

বেন স্টোকস ২০২৫ সালে অস্ট্রেলিয়ায় অ্যাশেজ সিরিজ খেলতে যাওয়ার ব্যাপারে নিজের বক্তব্য জানিয়েছেন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, অ্যাশেজ সিরিজ ২০২৩-এ ২-১ ব্যবধানে পিছিয়ে রয়েছে ইংল্যান্ড।

বেন স্টোকস বলেন, “এই সিরিজটির শেষে ফলাফল কি হয় এবং এটিতে আমাদের পারফরম্যান্স কেমন ছিল তা আমাদের ভাবতে বাধ্য করবে – যখন আমরা অস্ট্রেলিয়া যাব তখন কি আমাদের কাছে সেখানে আগের কয়েকবারের সফরের চেয়ে বেশি সুযোগ থাকবে। আশা করি, ২০২৫ সালে অস্ট্রেলিয়ায় যেতে ভালো লাগবে এবং সেখানে জেতার ভালো সুযোগও থাকবে। এটা বলতে ভালো লাগবে যে আমি এটা দুইবার জিতেছি। স্পষ্টতই অ্যাশেজের চারপাশেও প্রচুর ক্রিকেট খেলা হয়, তবে যখন ২০২৫ আসবে তখন আমরা দেখতে পাব কি হবে।”